সর্বশেষ সংবাদ :

একদিনেই সংকটের অবসান হতে পারে: খোকা

নিউ ইয়র্ক:khoka বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোটের সঙ্গে সংলাপে সরকার রাজি হলে দেশে চলমান সংকট এক দিনেই অবসান হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা।

রবিবার নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে খাবার বাড়ির চাইনিজ রেস্টুরেন্টে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

খোকা বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যে সাত দফা প্রস্তাব দিয়েছেন, এর ভিত্তিতে আলোচনা সম্ভব। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংলাপের ব্যাপারে কোনো আগ্রহ প্রকাশ করেননি।’

তিনি বলেন, বিরোধী জোটের সঙ্গে সরকার সংলাপে রাজি হলে চলতি সংকট এক দিনেই অবসান হতে পারে।

সংকট অবসানের প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ‘শীর্ষ পর্যায়ে আলাপ-আলোচনার আগে বিশেষজ্ঞ পর্যায়ে আলোচনা শুরু হতে পারে। বিরোধী জোটের প্রতিনিধি ছাড়াও ওই আলোচনায় সুশীল সমাজের ব্যক্তিরা অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন।’

তিনি বলেন, ‘আলোচনা সরাসরি ও উন্মুক্ত পরিবেশে হতে পারে। তা জাতীয় টেলিভিশনে সম্প্রচার করা যেতে পারে।’

সাদেক হোসেন খোকা বলেন, ‘আমরা যেকোনো আলোচনায় প্রস্তুত আছি। আমরা এ কথা বলি না— কালই হাসিনাকে ক্ষমতা ত্যাগ করতে হবে এবং আমরা অবিলম্বে ক্ষমতা দখল করব। আমরা চাই সুস্থ গণতান্ত্রিক অবস্থা ফিরে আসুক। সেই প্রক্রিয়ায় যদি শেখ হাসিনা অথবা অন্য কোনো শক্তি ক্ষমতায় আসে, আমরা তা মেনে নেব।’

তিনি অভিযোগ করেন, ‘সংবিধান থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার তুলে দিয়ে শেখ হাসিনা দেশকে গভীর সংকটে ফেলে দিয়েছেন। তাই দেশের চলমান পরিস্থিতি আর সংকটের দায়-দায়িত্ব তাকেই নিতে হবে।’

সরকারবিরোধী আন্দোলন দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেন সাদেক হোসেন খোকা।

তিনি বলেন, পুলিশসহ বিভিন্ন বাহিনীর উগ্র-দলবাজ সদস্যদের শান্তিপ্রিয় জনগণের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের নাম উল্লেখ করে তাদের নিবৃত্ত হওয়ার আহ্বান জানান বিএনপির এই নেতা।

তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘রাষ্টীয় বাহিনীর পোশাক পরিহিত এসব ব্যক্তির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় তথ্য জনগণ সংগ্রহ করে রাখছে এবং সময়মতো সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশ্যে খোকা প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘আপনারা কার বুকে গুলি চালাচ্ছেন? গণতন্ত্রের পক্ষে অবস্থান নেওয়াটাই তাদের অপরাধ? এভাবে নিষ্ঠুরতা দেখিয়ে আপনাদের কি লাভ? আপনারা তো কোনো দখলদার বাহিনীর সদস্য নন। দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসলে আপনাদের ভবিষ্যত বংশধরেরাই উপকৃত হবে।’

এসএসসি পরীক্ষার মধ্যেও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে খোকা শিক্ষার্থীদের অসুবিধার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। তিনি দাবি করেন, এসব ছাত্রছাত্রীর পরিবারের বড় একটা অংশ বিরোধী দলের আন্দোলনের প্রতি সহানুভূতিশীল।

তিনি বলেন, সরকার এসএসসি পরীক্ষাকে একটি ‘ইনস্ট্রুমেন্ট’ হিসেবে ব্যবহার করছে, যাতে বিরোধী দল বেকায়দায় পড়ে এবং আন্দোলনে ক্ষান্ত দেয়।

খোকা দেশের এই সংকট মুহূর্তে সকল পর্যায়ের সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তাসহ দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আওয়ামী লীগ সরকার পতন আন্দোলনে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, নির্বিচারে গুলি, ক্রসফায়ার, পেট্রোল বোমার সন্ত্রাস ও গণগ্রেপ্তারের মাধ্যমে দেশজুড়ে এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে সরকার। অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করার অপচেষ্টা বাস্তবায়নে বর্তমান অস্ত্রবাজ সরকার এমন কোনো অপকর্ম নেই যা করছে না।

ব্যক্তিগত চিকিৎসার জন্য খোকা বর্তমানে নিউ ইয়র্কে অবস্থান করছেন। তিনি জানান, নিউ ইয়র্কের বিখ্যাত ক্যান্সার চিকিৎসা কেন্দ্র স্লোন ক্যাটারিং হাসপাতালে তার ‘ওরালকেমোথেরাপি’ শুরু হয়েছে। কত দিন এই চিকিৎসা চলবে— তা জানাতে পারেননি তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতাদের মধ্যে আব্দুল লতিফ সম্রাট, জিল্লুর রহমান জিল্লু, গিয়াস আহমেদ, মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, গিয়াস উদ্দিন, মাহমুদুর রহমান চৌধুরী, ড. নূরুল আমীন পলাশ, এবাদ চৌধুরী, আব্দুস সবুর, মোশাররফ হোসেন সবুজ, উত্তম বণিক, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ আহমদ, পেনসিলভেনিয়া বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুর খান হারুন, যুবদল নেতা মামুন চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের দুই অংশের সভাপতি যথাক্রমে এম এ বাছিত ও আতাউর রহমান আতা, ছাত্রদল নেতা সোয়েব আহমেদ চৌধুরী, তারেকুল মারুফ, দেওয়ান রকি চৌধুরী, খোকার ব্যক্তিগত সহকারী সিদ্দিকুর রহমান মান্না প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Comments are closed.

shared on wplocker.com